সোনাগাজীতে সেতু মন্ত্রীর নামে চাঁদাবাজীর প্রতিবাদে উন্নয়ন কমিটির সংবাদ সম্মেলনও মানববন্ধন

আপডেট : December, 11, 2015, 3:21 pm

বিশেষ প্রতিনিধি->>
সোনাগাজীতে বিকল্প পথে রাস্তা নির্মাণের নামে সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজির প্রতিবাদে শুক্রবার সকালে উপজেলা আ’লীগের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন ও জিরো পয়েন্টে মানববন্ধন কর্কমসূচী পালন করেছে সোনাগাজী উপজেলার উন্নয়ন কমিটি। সংবাদ সম্মেলনে তারা অভিযোগ করেন, নোয়াখালী জেলার সোনাপুর থেকে শুরু হয়ে ফেনীর সোনাগাজী বাজারের উপর দিয়ে চট্রগ্রাম জেলার জোরারগঞ্জ মহসড়কে মিলিত হবে একটি আঞ্চলিক মহাসড়ক। এ সড়ক নির্মাণের ফলে নোয়াখালী থেকে চট্রগ্রামগামী লোকদের ১৮ কিলোমিটার পথের দূরত্ব কমে আসবে।এছাড়া সোনাগাজীতে একদিকে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটবে। অন্যদিকে এ অঞ্চলে আমদানী রপ্তানী বৃদ্ধি পাবে। ইতোমধ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ নির্বাহী কমিটির বৈঠক (একনেকে) ২৪৫ কোটি টাকার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহন প্রক্রিয়া শুরু করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সোনাগাজী বাজার রক্ষা কমিটির নাম দিয়ে সোনাগাজী বাজারের ঘর মালিক ও ব্যবসায়ীদের একাংশ বিকল্প পথে সড়ক নির্মাণের কথা বলে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নাম ভাঙিয়ে গণ চাঁদাবাজি শুরু করেছে। তারা হলেন অধ্যাপক মফিজুল হক, আবু তাহের,ইমাম উদ্দিন সেলিম পাটোয়ারী, কামরুল হোসেন টিপু,গিয়াস উদ্দিন মানিক, খায়েজ আহম্মদ নান্টু, হোসাইন আহম্মদ প্রমূখ এছাড়া এ কিমিটির অপতৎপরতা ও অপপ্রচারের কারণে সড়ক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা করেন তারা। তারা দাবি করেন এরা সরকার বিরোধি একটি এজেন্ট। সোনাগাজী বাজার রক্ষা কমিটিকে চাঁদা না দিতে ও তাদের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সবাইকে আহবান জানান। এ কমিটির অপতৎপরতার কারণে বিকল্প পথে সড়কটি নির্মাণ করা হলে একদিকে সরকারের ব্যয় বেড়ে যাবে অন্য দিকে বহু ঘরবাড়ি সহ গুরুত্বপূর্ণ জমি অধিগ্রহন করতে হবে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজদের প্রতিহত করে চলমান উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় DSC_0100সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান জানান তারা।সংবাদ সম্মলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সোনাগাজী উপজেলার উন্নয়ন কমিটির আহবায়ক ও আমিরাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল আলম জহির। অন্যান্যর মাঝে বক্তব্য রাখেন, উক্ত কমিটির সদস্য উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আজিজুল হক হিরণ,সোনাগাজী সদর ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল আরেফিন,শেখ নুরুল হুদা, মুক্তিযোদ্ধা এম এ মজিদ ভুলু মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি নুরুল আলম, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান, নুরুল আফছার মানিক, মোশাররফ হোসেন মিলন, নাছির উদ্দিন অপু,মো. সেলিম, নুর আলম মিস্টার, মোশাররফ মিয়া, জহির উদ্দিন, পৌর কাউন্সিলর শেখ মামুন,শেখ কলিম উল্যহ রয়েল, আইয়ূব খান, সাইদুল হক, আবদুল মোতালেব রবিন,মজিবুল হক, জাফর ইকবাল আজাদ, আবদুর রহিম মানিক। এছাড়া কয়েকজন জনপ্রতিনিধি ও ব্যবসায়ী উপস্থিত ছিলেন।