ফেনীর বিলোনিয়া সীমান্তে ৭১ দিন পর দুই শিশুকে বিজিবির মাধ্যমে পুলিশের কাছে হস্তান্তর

আপডেট : June, 15, 2016, 2:48 pm

চৌধুরী শামীম ->>>

ফেনীর পরশুরাম বিলোনিয়া সীমান্তের মজুমদারহাট এলাকায় ২ মাস ১১ দিন পর দুই শিশুকে ভারতের বিএসএফ বাংলাদেশের বিজিবির মাধ্যমে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে। মঙ্গলবার (১৪ জুন) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিলোনিয়া স্থল বন্দর এলাকা দিয়ে শিশুদেরকে হস্তান্তর করেন।
এসময় বাংলাদেশের পক্ষে ফেনীস্থ ৪ বর্ডার গার্ড ব্যাটলিয়নের (বিজিবি) সহকারী পরিচালক মোঃ এবিএম জাহাঙ্গির আলম, পরশুরাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাকিব হায়দার, পরশুরাম মডেল থানার অফিফসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কাশেম ও জেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ মোশারফ হোসেন এবং ভারতের পক্ষে বিএসএফের ১৬৮ ব্যাটলিয়ন ইন্সপেক্টর সত্যবাম, বিলোনিয়া মোবাইল ট্রান্স ফোর্স (এমটিএফ) স্বদেশ মজুমদার সহ দুদেশের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে দুশিশুকে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
ফেনীর পরশুরাম বিলোনিয়া সীমান্তের মজুমদারহাট এলাকা দিয়ে ৩ এপ্রিল বিকেলে মোঃ নয়ন হোসেন (১১) এবং মোঃ শুভ মিয়া (১০) নামে দুজন বালক বিভিন্ন জিনিসপত্র সংগ্রহ করতে করতে সীমান্ত ২১৬০/৪-৫ এস এর মধ্যবর্তী স্থান (বিলোনিয়া আইসিপি সংলগ্ন) দিয়ে ভারতের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। ভারতীয় পুলিশ তাদেরকে স্বর্ণালংকারসহ কয়েকটি জিনিসি চুরির দায়ে বিলোনিয়া শহরের পাশ থেকে গ্রেফতার পূর্বক আগরতলা জোভেনাইল কোর্টে প্রেরণ করে। পরদিন ৪ এপ্রিল ১০টায় বালকদ্বয়ের অভিভাবক ভারতে প্রবেশ এবং ফিরে না আসার বিষয়টি মজুমদারহাট কোম্পানী কমান্ডারকে অবহিত করেন।
তাৎক্ষণিকভাবে ভারতের বিএসএফের সাথে কোম্পানী কমান্ডার পর্যায়ে এবং পরবর্তীতে অধিনায়ক পর্যায়ে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে ১৬৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার চুরির দায়ে বালক দুটিকে আটক করে জোভেনাইল কোর্ট আগরতলা প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানায়।
গত ৫ এপ্রিল বালকদ্বয়কে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে ফেনীস্থ ৪ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ শামীম ইফতেখার ১৬৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়ন ডেপুটি কমান্ড্যান্ট শ্রী নিরেজ কুমার এবং ৭ এপ্রিল ১৬৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমান্ড্যান্ট শ্রী ব্রিজেশ কুমার এর সাথে পতাকা বৈঠক করেন এবং ১২ এপ্রিল প্রতিবাদ লিপি প্রেরণ করা হয়। তাছাড়া বালকদ্বয়কে দ্রুত ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে সেক্টর কমান্ডার বিজিবি কুমিল্লা গাজী আহসানুজ্জামান, জি এবং সেক্টর কমান্ডার গোকুলনগর শ্রী বিএস টলিয়া টেলিকথোপকথন করেন। এছাড়াও নোডাল অফিসার উত্তর-পূর্ব রিজিয়ন সরাইল এবং নোডাল অফিসার ত্রিপুরা ফ্রন্টিয়ার বালকদ্বয়কে দ্রুত ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে পত্রালাপ ও টেলিকথোপকথন করেন।
কিন্তু প্রতি ক্ষেত্রেই বালকদ্বয় চুরির দায়ে অভিযুক্ত থাকায় আইন প্রক্রিয়ায় সম্পন্নের বিষয়টি বিএসএফ বিজিবিকে অবহিত করেন। প্রকাশ থাকে যে, গত ২৪ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে ভারতের অপহৃত ৫ জন শিশুকে ৪ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন কর্তৃক দ্রুত উদ্ধার পূর্বক বিএসএফ এর নিকট হস্তান্তর করার বিষয়টি প্রতিটি ক্ষেত্রে বিজিবি‘র বিভিন্ন কর্মকর্তাগণ বিএসএফ এর নিকট তুলে ধরেছেন। অতঃপর অদ্য ১৪ জুন ৬ টায় বিএসএফ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার অধিনায়ক ৪ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নকে এবং বিএসএফ বিলোনিয়া কোম্পানী কমান্ডার মজুমদারহাট কোম্পানী কমান্ডারকে বালকদ্বয়কে হস্তান্তরের বিষয়টি অবহিত করলে প্রায় সাড়ে ১১টায় বিজিবি-বিএসএফ এর উপস্থিতিতে বালকদ্বয়কে ইমেগ্রেশন পুলিশ বিলোনিয়া হতে ইমেগ্রেশন পুলিশ পরশুরাম কর্তৃক গ্রহণ করা হয় এবং একই সময়ে ইমেগ্রেশন পুলিশ পরশুরাম উক্ত বালকদ্বয়কে সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রতিনিধি নিকট হস্তান্তর করে।