সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নাম ভাঙ্গিয়ে দাগনভূঞায় গণ শৌচাগার দখলের অভিযোগ

আপডেট : August, 6, 2016, 1:11 pm

বিশেষ প্রতিনিধি->>>

সড়ক,পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নাম ভাঙ্গিয়ে ফেনীর দাগনভূঞা বাজারে সড়ক ও জনপথের জায়গার উপর নির্মিত পাবলিক টয়লেট(গন শৌচাগার)টি দখল করে দোকান নির্মান করছেন পৌরসভার মেয়র ওমর ফারুক খানের নেতৃত্বে একটি চক্র।

গত দুই দিন যাবত শ্রমিক দিয়ে পৌরসভার জিরো পয়েন্টে পাবলিক টয়লেট(গণ শৌচাগার)টি ভেঙ্গে দোকান নিমাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। ১০ লাখ টাকায় সেখানে দোকান বরাদ্ব দেওয়ার কথাবার্তা চলছে বলে জানা গেছে।
বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান,এখানে বাস ষ্টপিজ হওয়ায় এখানে প্রতিদিন শত শত পরিবহন যাত্রী উঠানামা করে।গনশৌচাগারটি বন্ধ হয়ে গেলে ব্যবসায়ী ,বাস যাত্রীও পথচারীদের কি অবস্থা হবে।

দাগনভূঞা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবুল কায়েস রিপন জানান, এ গন শৌচাগারটি বিগত ২০০৭ সালে বিদেশী(ড্যানিডা)অর্থায়নে পৌরসভার সহযোগীতায় ফেনী-নোয়াখালী সড়কের গুরুত্বপূর্ন স্থানে তৎকালীন নির্মাণ করা হয়।বর্তমানে মেয়রের নেতৃত্বে একটি চক্্েরর এখানে লোলূপ দৃষ্টি পড়েছে।সাধারণ লোকজনের কথা চিন্তা না করে তারা টাকার জন্য অন্যায়ভাবে শৌচাগারটি ভেঙ্গে দোকান নির্মাণ করছে।

শৌচাগারের তত্ত্বাবধায়ক জয়নাল আবেদীন জানান,চার মাস পূর্বে পৌরসভা থেকে শৌচাগারটি দুই লাখ বিশ হাজার টাকা দিয়ে বরাদ্দ নিই।এখন আমাকে কিছু না জানিয়ে পৌরসভার মেয়র অতর্কিত ইটের তৈরী শৌচাগারটি ভেঙ্গে দোকান নির্মাণ করছে।আমার টাকাও ফেরত দেয়নি।

দাগনভূঞা পৌরসভার মেয়র ওমর ফারুক খান শৌচাগার ভেঙ্গে দোকান নির্মানের সত্যতা স্বীকার করে বলেন,পৌরসভার আর্থিক উন্নয়নের জন্য এখানে দোকান নির্মাণ করে ভাড়া দেওয়া হবে।
সড়ক ও জনপথের জায়গায় পৌরসভা দোকান নির্মান করে ভাড়া দিতে পারে কিনা এ প্রশ্ন করলে মেয়র কোন সদুত্তর দিতে পারেন নি।

ফেনী সড়ক ও জনপথের সহকারী প্রকৌশলী এয়াসিন আহম্মদ জানান,সড়ক ও জনপথের জায়গায় পৌরসভা দোকান তৈরী করা বেআইনী।পৌর মেয়রকে নির্মাণ কাজ বন্ধ করার জন্য বলা হয়েছে।