সোনাগাজীর চরচান্দিয়ায় দিনমজুরের স্ত্রীকে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা

আপডেট : December, 8, 2017, 6:15 pm

 

জাবেদ হোসাইন মামুন->>>
ফেনীর সোনাগাজীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে এক দিনমজুরের স্ত্রীকে ফাঁসানোর চেষ্টা চালিয়েছে মাসুদ আলম স্বপন নামে এক দুর্বৃত্ত। একটি সাজানো মিথ্যা পরিকল্পিত অস্ত্র মামলায় অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই অস্ত্র মামলায় ফেঁসে যাচ্ছেন স্বপন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের পূর্ব বড়ধলী গ্রামের রবদ আলী বাতাইন্না বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ, এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার জানায়, আবদুর রবের ছেলে আলা উদ্দিন গংদের সাথে একই বাড়ির আবদুর রাজ্জাকের ছেলে মাসুদ আলম স্বপনের সাথে পারিবারিক বিষয়াদি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। পূর্ব বিরোধের জের ধরে গত ১০ সেপ্টম্বর বিকালে স্বপনের দু’ছেলে জামশেদ আলম বিজয় ও নুর আলম জয় আলা উদ্দিনের ছেলে মো. তারেককে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। এ ব্যপারে তারেক বাদি হয়ে গত ১২ সেপ্টম্বর সোনাগাজী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। ওই অভিযোগের প্রক্ষিতে থানা পুলিশের মধ্যস্থতায় উভয় পক্ষের সম্মতিতে গত ১৮ সেপ্টেম্বর এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বিরোধ মীমাংসা করে দেন এবং মাসুদ আলম স্বপনের ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। তিনি জরিমানার টাকাও পরিশোধ করেছেন। কিন্ত প্রতিপক্ষের উপর তার হিংসাত্মক আক্রোশ থেমে থাকেনি। ৪ নভেম্বর আলা উদ্দিন ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে কথিত চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে ফেনীর পুলিশ সুপারের নিকট মাসুদ আলম স্বপন একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ সুপারের নির্দেশে ফেনীর (ডিবি) গোয়েন্দা পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করলে মিথ্যা প্রমাণিত হয়। এর পরও থেমে থাকেনি স্বপনের অপতৎপরতা। একটি দালাল চক্রের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে সোনাগাজী মডেল থানার এসআই আবদুল কুদ্দুসকে অবৈধ অস্ত্রের সন্ধান দিয়ে খবর দেন স্বপন। পুলিশ খবর পেয়ে আলা উদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে তার বসত ঘর থেকে দূরে একটি খড়ের স্তুপের নিচ থেকে সোর্সের দেয়া তধ্য মতে একটি এলজি, তিনটি ককটেল ও দু’রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করে। এসময় পুলিশ আলা উদ্দিনের স্ত্রী রোকেয়া বেগমকে খড়ের মালিক হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে আসে। ঘটনার সময় দিনমজুর আলা উদ্দিন চরে তার কর্তনকৃত ধান পাহারা দিচ্ছিল। বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং গ্রামবাসী স্বপনের সাথে পূর্ব বিরোধের বিষয়ে থানা পুলিশকে অবহিত করেন। এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুল মোতালেব তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আলা উদ্দিন একজন দিনমজুর ও সহজ-সরল মানুষ এবং তার স্ত্রীও একজন সহজ সরল নারী। তাদেরকে পূর্ব বিরোধের জের ধরে হয়রানির উদ্দেশে এ নাটক সাজানো হয়েছে। এ ব্যপারে সোনাগাজী ও দাগনভূঞা সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার জুনায়েদ কাউছার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার প্রাথমিক তদন্তে সাজানো বলে মনে হয়েছে। তথ্য দাতা ও ষড়যন্ত্রকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। সোনাগাজী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) হারুনুর রশিদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, অস্ত্রের সন্ধানদাতা ও ষড়যন্ত্রকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের পূর্বক অসহায় নারীকে ছেড়ে দেয়ার প্রস্তুতি চলছে। ঘটনার পর থেকে মাসুদ আলম স্বপন গা ডাকা দিয়েছে বলে জানা গেছে। পুলিশ তাকে অস্ত্র মামলায় গ্রেফতারের জন্য হন্য হয়ে খুঁজছে।