সোনাগাজীর চরচান্দিয়ায় রাস্তা নির্মাণের নামে দুই মুক্তিযোদ্ধার জমি জবর দখলের পাঁয়তারা

আপডেট : June, 14, 2019, 6:09 am

জাবেদ হোসাইন মামুন->>>
ফেনীর সোনাগাজীর চরচান্দিয়া ইউনিয়নের চরচান্দিয়া গ্রাম দুই মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক চাষী ও মৃত গিয়াস উদ্দিনের মালকীয় দখলীয় তিন ফসলী জমি থেকে মাটি কেটে রাস্তা নির্মাণের পাঁয়তারা করছে একটি দুষ্টু চক্র। একজন ব্যক্তি বিশেষের সুবিধার জন্য তার থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে এই চক্রটি উক্তপ্রক্রিয়ায় জমিগুলো জবর দখলের পাঁতারা করছে।
এলাকাবাসী ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যরা জানান, গত কয়েকদিন পূর্বে তাদের ফসলি জমির উপর দিয়ে স্কেভেটর মেশিন দিয়ে একটি দুষ্টু চক্র মাটি কেটে ১২ফুট চওড়া রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু করেন। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যরা তাৎক্ষণিক বাধা দিলে দুর্বৃত্তরা পিছু হটে। তারা তাদের জমির উপর হঠাৎ করে রাস্তা নির্মাণের কারণ জানতে চাইলে চক্রটি স্থানীয় ইউপি সদস্য হত দরিদ্র প্রকল্পের অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে বলে জানায়। পরবর্তীতে জমি মালিকদের বাধার মুখে মাটি কাটা বন্ধ রেখে মেশিন নিয়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. নূর হোসেন জানান, জমি মালিকদের সাথে ওই চক্রটি আপোষের মাধ্যমে রাস্তা নির্মাণ করে দিতে হবে বলে জানালে তিনি হত দরিদ্র প্রকল্পের অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারগুলো যেহেতু তাদের জমির উপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ প্রয়োজন মনে করছেনা এবং জমি মালিকদের সাথে যেহেতু রাস্তা নির্মাণ করতে আগ্রহীদের সাথে যৌক্তিক আপোষ হয়নি, সেহেতু আমি আর ওই জমির উপর দিয়ে কোন রাস্তা নির্মাণ করবোনা।
কোন মুক্তিযোদ্ধার ক্ষতি হয় এমন কোন হঠকারী কাজ আমি করে দিতে পারবোনা। এই দিকে ওই চক্রটি যেহেতু বিশেষ সুবিধাভোগি তাই তাদের অপতৎপরতা কিন্তু থেমে নেই। তারা ফের রাতের আঁধারে জমিগুলো জবরদখল করে রাস্তা নির্মাণের পাঁয়তারা করছে বলে জানা গেছে। এতে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারগুলো চরম শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। রাস্তানির্মাণের নামে মুক্তিযোদ্ধাদের জমি জবর দখলের অপচেষ্টা চালালে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারগুলো চক্রটির বিরুদ্ধে দাঁতভাঙা জবাব দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন।
বিনা প্রয়োজনে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানির হীন উদ্দেশ্যে রাস্তা নির্মাণের নামে জমি জবর দখল থেকে মুক্তি পেতে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সোনাগাজী মডেল থানার ওসির হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক চাষী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাদের বাড়িটি মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ক্যান্টনমেন্ট হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। তাদের পরিবারে ৪জন মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে। আর সেই পরিবারের জমি যদি জবর দখলের জন্য কেউ পাঁয়তারা করে তাহলে আমরা পর্যায়ক্রমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আশ্রয় চাইবো। আশা করি কোন চক্রেরই অসৎ উদ্দেশ্য হাসিল হবেনা।