ফাজিলপুরে যুবলীগ কর্মী মানিককে হত্যার ঘটনায় মামুনের স্বীকারোক্তি

আপডেট : November, 4, 2019, 11:58 pm

জাবেদ হোসাইন মামুন->>>
ফেনী সদর উপজেলার ফাজিলপুর ইউনিয়ন যুবলীগ কর্মী রবিউল হক মানিককে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে মামুন। আদালতে ১৬৪ ধারায় এমন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন মাজহারুল ইসলাম মামুন। সোমবার দুপুরে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এস.এম এমরানের আদালতে জবানবন্দি দেয়।
ফেনী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মো. সাজেদুল ইসলাম ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এবং বোগদাদিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. ওমর হায়দার রবিবার বিকালে কসকা বাজারে অভিযান চালিয়ে সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে মাজহারুল ইসলাম মামুনকে গ্রেফতার করে। সোমবার দুপুরে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এস.এম এমরানের আদালতে তাকে হাজির করে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা।
আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে মামুন জানায়, ৫ মাস পূর্বে রবিউল হক মানিক তাকে মারধর করে। জমি নিয়ে তাদের মধ্যে পারিবারিক বিরোধ চলে আসছিল। ঘটনার দিন মামুনসহ আরো দু’জন মিলে মানিককে পিছন থেকে কোপ দেয়। মানিক পড়ে গেলে তার গলায় উপর্যপুরি কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।
ফেনী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মো. সাজেদুল ইসলাম জানান, মামুনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দা’টি ঘটনাস্থলের পাশে একটি ডোবা থেকে উদ্ধার করা হয়। মামুন এ মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি। সে ফাজিলপুর কামু ভূঞা বাড়ির মো. মোস্তফার ছেলে। এ মামলায় তার পিতা মোস্তফাকেও গ্রেফতার করা হয়। জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে মানিককে হত্যা করা হয়েছে বলে মামুন আদালতে স্বীকার করে।
প্রসঙ্গত; গত ১০ অক্টোবর রাত ১১টার দিকে ফাজিলপুর বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে পশ্চিম ফাজিলপুর গ্রামের নুরুল হকের ছেলে যুবলীগ কর্মী মানিককে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর মানিকের মা রোসনে আরা বেগম বাদি হয়ে ৪ জনের নাম উল্লেখ করে ফেনী মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।