সোনাগাজীতে গৃহবধূর অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে চাঁদাবাজির অভিযোগে ইউপি সদস্য সহ ৬ জনের নামে মামলা

আপডেট : November, 10, 2019, 4:35 pm

জাবেদ হোসাইন মামুন->>>

সোনাগাজীতে গৃহবধূর অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে মারধর, হুমকি ও চাঁদাবাজির অভিযোগে ইউপি সদস্যে সহ ৬ জনের নামে রোববার সকালে মামলা দায়ের করেছেন পান্না রানী শীল নামে এক গৃহবধু। সোনাগাজী মডেল থানার মামলা নং-১০, তাং- ১০-১১-২০১৯খ্রি.

মামলায় আসামিরা হলেন-আমিরাবাদ ইউনিয়নের গোড়ামারা গ্রামের শাহাজাহান সাজুর ছেলে মতিউল আলম জাসেদ, ১নং ওয়ার্ডে সদস্য, সফরপুর গ্রামের আবদুল কুদ্দুসের ছেলে আব্দুল হামিদ, নুর ইসলামের ছেলে রিয়াদ, মিলন কানু নাথের ছেলে সঞ্জয় নাথ, নারায়ণ চন্দ্র নাথের ছেলে সুমন নাথ ও নির্মল চন্দ্র শীলের ছেলে সমীর শীল।

গৃহবধূর, তার পরিবারের সদস্যরা ও পুলিশ জানায়, মঙ্গলকান্দি ইউনিয়নের সমপুর গ্রামের শীল বাড়ির পিন্টু চন্দ্র শীলের স্ত্রী পান্না রানী শীল গত ২৭ অক্টোবর পিতার শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আমিরাবাদ ইউনিয়নের সফরপুর গ্রামে বেড়াতে যান। ২ নভেম্বর পান্নাকে ঘরে রেখে তারা মা ও ভাই বিরামপুর নানার বাড়িতে যান। তার পিতার মৃত্যুর সংবাদ শুনে তার ভাইয়ের সাথে ওমানে থাকা বন্ধু মানিকগঞ্জের বেদারা গ্রামের সামছুল হকের ছেলে সাইফুল ইসলাম ২ নভেম্বর সন্ধ্যায় তার বাড়িতে বেড়াতে আসে। তার ঘরে মা ও ভাই না থাকার কারণে তাকে খাওয়া ধাওয়া করিয়ে একই বাড়িতে তার জেঠার ঘরে রাতে ঘুমানোর জন্য তাকে রেখে আসেন।

ওই রাতে আসামিরা বাড়িতে এসে মেহমান কোথায় আছে জানতে চেয়ে গৃহবধূকে মারধর করে। পরে তারা তার জেঠার ঘর থেকে অতিথি সাইফুল ইসলামকে ধরে এনে বেদম মারধর করে পিতার ঘরের একটি কক্ষে জোরপূর্বক আপত্তিকর ছবি তোলে। এসময় ঘরের আলমারি ভেঙ্গে ১০ হাজার টাকা, তার আট আনা ওজনের স্বর্নের চেইন ও অতিথির সাথে থাকা ২০ হাজার টাকা মূল্যের মোবাইল সেট ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে আরো এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে । টাকা দিতে না পারায় তারা তার অতিথিকে বাড়ি থেকে রাস্তায় নিয়ে মারধর করতে থাকে। ওই সময় ইউপি সদস্য আবদুল হামিদ হামলাকারীদেরকে ৮০ হাজার টাকার চেক প্রদান করলে তারা চলে যায়। পরের দিন ওই গৃহবধূ হামিদ মেম্বারকে নগদ ৮০ হাজার টাকা প্রদান করেন। একই সময়ে তারা তার অতিথির বিকাশ একাউন্ট থেকে ৫০ হাজার টাকা  উত্তোলন করে নিয়ে যায়। আসামিদের অব্যাহত হুমকি ধামকিতে এলাকা ছেড়ে তিনি এক আত্মীয়ের বাড়িতে আত্মগোপন করেন।

গৃহবধূ আরো বলেন, ঘটনার পর থেকে আসামিরা থানায় মামলা করলে বা কাউকে জানালে অশ্লীল ভিডিও ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়ায় ভয়ে এতদিন মামলা করতে সে সাহস পায়নি।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মঈন উদ্দিন আহমদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলা রুজু করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ ব্যাপারে জানার জন্য বার বার চেষ্টা করেও ইউপি সদস্য আবদুল হামিদ কে পাওয়া যায়নি এবং তার ব্যবহৃত মুঠো ফোনটিও বন্ধ রয়েছে।