সোনাগাজীতে  আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে টং ঘর নির্মাণ, টাগি মিজানের খুঁটির জোর কোথায়

আপডেট : November, 26, 2019, 11:25 pm

সংবাদদাতা->>>

ফেনীর সোনাগাজীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে রাতের আঁধারে বিপু চৌধুরীর মালিকীয় জমিতে টং ঘর নির্মাণ করে জবর দখলের চেষ্টা চালিয়েছে প্রতিপক্ষ ও ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা। ১৮ নভেম্বর দিবাগত গভীর রাতে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ভৈরব চৌধুরী বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আবশ্যই ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক ১৮৮ ধারা মোতাবেক আদালতে প্রতিকার চাইলে আবেদন মঞ্জুর করে বাদির আবেদনের বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সোনাগাজী মডেল থানার ওসিকে আদেশ দিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।  ২৫ নভেম্বর ফেনীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. গোলাম জাকারিয়া এই আদেশ দেন। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও পুলিশ জানায়, ছাড়াইতকান্দি গ্রামের বজলের ছোবহান চৌধুরী বাড়ির মরহুম আবুল কালাম আজাদ সেন্টু মিয়ার ছেলে নুর মোহাম্মদ আজাদ ওরফে বিপু চৌধুরী দক্ষিণ সুজাপুর মৌজার ৬০৩ নং খতিয়ানে ২৫০২দাগে ৭৬ শতক জমির আন্দরে ৫.৫০ শতক জমির ওয়ারিশ সূত্র মালিক দখলকার রয়েছেন। সেখানে পূর্ব সুজাপুর গ্রামের মৃত ছিদ্দিক আহম্মদের ছেলে মিজানুর রহমান ওরফে টাগি মিজানকে বাঁশ বিক্রি করার জন্য মৌখিক ভাবে ভাড়া দেন। ওই জমির উপর লোপুপ দৃষ্টি পড়ে টাগি মিজানের। নিয়মিত ভাড়া পরিশোধ না করে জবর দখলের চেষ্টা চালায় সে। এব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে গত ১৮ নভেম্বর ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৫ ধারা মোতাবেক ফেনীর অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন বিপু চৌধুরী। আদালত শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সোনাগাজী মডেল থানার ওসিকে আদেশ দেন এবং সোনাগাজী পৌর ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তাকে প্রকৃত দখলের বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন। এই খবর জানতে পেরে টাগি মিজান ও তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা অন্যত্র নির্মাণ করা টিনের একটি টং ঘর ১৮ নভেম্বর গভীর রাতে উক্ত জমিতে স্থাপন করে দেয়। এঘটনায় ২৫ নভেম্বর একই আদালতে বিপু চৌধুরী ১৮৮ ধারা মোতাবেক প্রতিকার চাইলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। রাতের আঁধারে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিপু চৌধুরীর মালিকীয় দখলীয় জমিতে টং ঘর নির্মাণ করায় টাগি মিজানের খুঁটির জোর নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে এলাকাবাসী।