যুবলীগের চেয়ারম্যান এর সাথে বিদেশ কমিটির শুভেচ্ছা ও মতবিনিময়

আপডেট : November, 30, 2019, 4:37 pm

আলোকিত সময় ডেস্ক>>>

 

 

যুবলীগের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান, পরিচ্ছন্ন, ক্লীন ইমেজের নেতা,শেখ ফজলুল হক মনির সুযোগ্য সন্তান,অধ্যাপক শেখ ফজলে সামস পরশ এর সাথে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদ্য সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, আন্তর্জাতিক পরামর্শক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড.সাজ্জাদ হায়দার লিটনের নেতৃত্ব বিশ্বের বিভিন্ন দেশের যুবলীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক গন শুভেচ্ছা ও মতবিনিময় করেন। এসময় বিদেশ যুবলীগের নেতারা তাদের বক্তব্যে বলেন ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা জানাই সারা বিশ্বের যুব আইকন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সম্মানিত সদ্য সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক জনাব ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন ভাইকে আপনার সহযোগিতায় বিদেশ কমিটিগুলো আজকে যে সম্মান পেয়েছে তা অতীতে কোনদিন পায়নি আপনার অবদানে আজকে সবাই তাদের মনের সুখ, দুঃখ,দাবি সবকিছু সম্মানিত চেয়ারম্যান মহোদয়ের নিকট তুলতে ধরার সুযোগ পেরেছে, যে সুযোগ অতীতে কোনদিন হয়নি।আপনি সবসময়,প্রতিটি সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক প্রোগামে আমাদের খোঁজ খবর নিয়েছেন, আমাদের সুখে দুঃখে পাশে ছিলেন, আপনি আজকে প্রমান করে দিলেন আপনি সত্যিকারের একজন কর্মীবান্ধব নেতা।সবশেষে সারা বিশ্বের যুবলীগ নেতাকর্মীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির সুযোগ্য সন্তান রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার শ্রেষ্ঠ আবিষ্কার যুবলীগের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান জনাব শেখ ফজলে শামছ পরশ ভাইকে বিদেশ কমিটিগুলোকে প্রায় ২ ঘন্টার বেশি সময় দিয়ে সবার মনের কথা শুনে বিদেশ কমিটির সকল নেতৃবৃন্দকে যথাযথ সম্মান দিয়ে সবাইকে দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্য দেয়ার জন্য।ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন তার বক্তব্যে বলেন,আমার নেএী,বিশ্বনেএী,সেই ৪৮ বছর আগের যুবলীগকে আমাদের মাঝে ফিরিয়ে দিয়েছেন, সম্মানিত চেয়ারম্যান পরশ ভাই এর মাধ্যমে। যুবলীগের অতীতের সকল বদনাম দূনাম ঘুচিয়ে এগিয়ে নিতে এমন সময় এমন একজনকে তিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন যিনি একজন মানুষ গড়ার কারিগর, সুশিক্ষায় শিক্ষিত,জাতির জনকের রক্ত যার শরীরে।তিনি আরো বলেন, পরশ ভাই দীর্ঘ দিন বিদেশের নানা দেশে কমিটি না থাকার কারনে সেখানে নানা গ্রুপিং,কোন্দল হচ্ছে। আপনি যাচাই বাছাই করে, সকল অনুপ্রবেশ ঠেকিয়ে অতি দ্রুত কমিটি গুলো দিবেন বলে আমি আসাকরি।প্রধান অতিথির বক্তব্যে চেয়ারম্যান বলেন,আমি আমার বাবার হাতে গড়া,যুবলীগ কে আমার ফুপু ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আস্তার যুবলীগে রুপান্তর করব,চেয়ারম্যান হিসেবে না,একজন শিক্ষক ও কমী হিসেবে আপনাদেরকে নিয়ে এশিয়া সবচেয়ে বড় ও ক্লীন সংগঠনে রুপদিব,তিনি বলেন,আমি সাজ্জাদ হায়দার লিটনকে ধন্যবাদ জানাই,সে তার যোগ্য নেতৃত্ব বিদেশ যুবলীগকে সুসংগঠিত করে রেখেছে। অন্যনদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন আমেরিকা, ব্রাজিল,মালয়েশিয়া, গ্রীস,ওমান,কুয়েত ও ইউএই যুবলীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক সহ আরো অনেকে।