ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আধুনিকায়নে আরএমও আবু তাহেরের যত প্রচেষ্ঠা

আপডেট : January, 29, 2020, 1:38 pm

আলোকিত সময় ডেস্ক>>>

 

 

স্বাস্থ্যসেবায় নতুন দিগন্তের সূচনা করেছে ফেনীর ২৫০ শয্যার আধুনিক জেনারেল হাসপাতাল (সদর হাসপাতাল)। অত্যাধুনিক সরঞ্জাম,আধুনিক যন্ত্রপাতি, পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ রয়েছে হাসপাতালটিতে। একসময়ে হাসপাতালে নানা সংকটের নামে খ্যাত এ হাসপাতালে বর্তমান সময়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন ধনী-দরিদ্র থেকে শুরু করে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ। যদিও এখনো পর্যন্ত হাসপাতালের পুরোপুরি সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি, তবে খুব শীঘ্রই এ সমস্যা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ফেনী জেনারেল হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবায় নতুন দিগন্তের সূচনাকারী ব্যক্তিত্ব আরএমও ডা. আবু তাহের পাটোয়ারী। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আরএমও ডা. আবু তাহের পাটোয়ারী নিজ উদ্যোগে হাসপাতালের সামনে পানির ঝর্ণা ও ফুলের বাগান তৈরি করেছেন এবং অপরিচ্ছন্ন জায়গা পরিস্কার করে সেখানে ফুল গাছ লাগিয়েছেন। জানা যায়, তিনি যখন হাসপাতালে আরএমও হিসেবে যোগদান করেন, তখন থেকে হাসপাতাল এলাকা অত্যন্ত পরিপাটি ও পরিচ্ছন্নতার কাজ শুরু করেন। এছাড়া দর্শনার্থী পরিচয়ে বহিরাগতদের ঠেকাতে ফেনী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট আধুনিক জেনারেল হাসপাতালে দর্শনার্থী পাস কার্ডের শুভ উদ্বোধন করেছেন। মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজজামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পাস কার্ডের আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্বোধন করেন। জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজজামান বলেন, এ ব্যবস্থা চালুর সুবাদে হাসপাতালে বহিরাগত, দালাল ও অযাচিত দর্শনার্থীর ভিড় কমবে। ফেনী জেনারেল হাসপাতালের রেসিডেন্ট মেডিকেল অফিসার ডা. আবু তাহের পাটোয়ারী জানান, রোগী ভর্তি হওয়ার সময় সঙ্গে একজন দর্শনার্থী ১০০ টাকা জামানতের বিনিময়ে কার্ডটি পেয়ে থাকবেন। পরে হাসপাতাল ত্যাগের সময় কার্ড ফেরত দিয়ে তিনি তার জমাকৃত টাকা ফেরত নিয়ে যাবেন। এটি চালুর ফলে হাসপাতালে বহিরাগত কোনো ব্যক্তি প্রবেশ করতে পারবে না। এছাড়া ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের দালাল এবং ফার্মেসি কর্মচারীদের প্রবেশও ঠেকানো যাবে।

এতে করে চিকিৎসক, নার্স ও হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারী কাজে মনোযোগী হবেন এবং সেবার মান বাড়বে তিনি বিশ্বাস করেন। এছাড়া সকাল -বিকাল পর্যায়ক্রমে পরিচ্ছন্নকর্মীরা হাসপাতালের ওয়ার্ড থেকে শুরু করে ক্যাম্পাসের প্রতিটি রাস্তা ঝাড় দিয়ে পরিপাটি করে রাখেন। আজ থেকে কয়েক বছর আগে সদর হাসপাতালে আসা ব্যক্তি যদি এখন ফেনী এই জেনারেল হাসপাতাল আসেন, তাহলে মুহূর্তেই পরিচ্ছন্নতার পার্থক্যটি বুঝতে পারবেন। হাসপাতালের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে সেবা বৃদ্ধির মানও। হাসপাতাল সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা কর্মচারীর ভালো ব্যবহারও প্রথম সাক্ষাতেই আপনার নজর কাড়বে।

অপারেশনের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি সরবরাহ করা আছে। প্রতিটি ওয়ার্ডকে আলাদা করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ডাক্তার ও রোগীদের মাঝে গোপনীয়তা রক্ষার জন্য বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে। হাসপাতালে রোগী কল্যাণ পরিষদ রয়েছে। এ পরিষদের মাধ্যমে গরিব রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। চিকিৎসাসেবার মান বৃদ্ধি করতে সব ওয়ার্ডের নামকরণ করা হয়েছে। সকল স্টাফদের আইডি কাড চালু করা পরিকল্পনা করেছিলেন ডা. আবু তাহের পাটোয়ারী। এইদিকে অল্প সময়ের মধ্যে আরএমও ডা. আবু তাহের পাটোয়ারী ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আধুনিকায়নের যে প্রচেষ্ঠা করেছেন তা দৃশ্যমান ও পরিলক্ষিত হয়েছে। তিনি হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মান বৃদ্ধি করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। সাধারণ রোগী থেকে শুরু করে সকল পেশার মানুষের কাছে তিনি এক জনহিতৈষী মানুষ হিসেবে পরিচয় লাভ করেছেন। হাসপাতালের সকল ডাক্তার, কর্মকর্তা ও কর্মচারীর কাছে তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। এদিকে তাকে সম্প্রতি হাসপাতালে থেকে বদলি করাতে স্টাফদের মাঝে খোপ বিরাজ করেছে।