সরকারী বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা লোপাট করলেন কাউন্সিলর লিটন

আপডেট : April, 5, 2020, 1:20 pm

বিশেষ প্রতিনিধি-

বেপরোয়া ক্ষমতার দাপটে রাস্তাঘাট, এনায়েত উল্লাহ মহিলা কলেজের মাঠ ভরাট,সোলার লাইট ও মসজিদ মন্দিরের উন্নয়নের নামে সরকারি বরাদ্দ এনে লুটেপুটে খেয়ে আঙ্গুল পুলে কলাগাছ হয়েছেন সোনাগাজী পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের বিতর্কিত কাউন্সিলর নূরনবী লিটন। মসজিদের উন্নয়ন কাজের হিসাব জানতে চাওয়ায় মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি নূর করিম ভূট্রোকেও গালি-গালাজ করে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছিলেন লিটন। এসব বিষয়ে ফেনী-৩ আসনের সংসদ সদস্য লে. জেনারেল অব. মাসুদ উদ্দিন চৌধূরী সহ সরকারি বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছিলেন মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি। সরকারি কিছু কিছু দফতরকে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করায় নূরকরিম ভূট্রোর আবদেন আলোর মুখ দেখেনি বলে তার অভিযোগ। জানা গেছে, গ্রামীণ অব কাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় এনায়েত উল্যাহ মহিলা কলেজের মাঠ ভরাটের নামে কাবিখার প্রকল্প এনে মাত্র ১৫-২০হাজার টাকার মাটি ভরাট করে বাকী টাকা আত্মসাত করেছে। এনিয়ে ওই কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ নিতাই চরণ ভৌমিকের সাথে তার কথাকাটিও হয়েছে। এক পর্যায়ে তাকে হুমকি দিয়ে প্রকল্প কমিটির স্বাক্ষর নিয়েছেন। লিটন একজন আন্ডার মেট্রিক লোক হলেও অবৈধভাবে এনায়েত উল্যাহ মহিলা কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য হয়েছেন। তাছাড়া ওই কলেজে তার কোন মেয়েও অধ্যয়নরত নেই। সে নানা অজুহাতে কলেজে গিয়ে অনৈতিক হস্তক্ষেপ করে। ফলে ছাত্রীরাও চরম বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হতে হয়।

পাঠকের সুবিধার জন্য পশ্চিম ছাড়াইতকান্দি রাসুলে করিম স. জামে মসজিদের সহ-সভাপতি নূর করিম ভূট্রোর আবেদনের হুবুহু তুলে ধরলাম।
বরাবর,
উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোনাগাজী-ফেনী
বিষয়: উন্নয়ন প্রকল্পের নামে সরকারি টাকা আত্মসাতের অপচেষ্টা প্রসঙ্গে জরুরী ভিত্তিতে প্রতিকারমূলক ব্যাবস্থা গ্রহণের আবেদন।
জনাব,
যথাবিহীত সম্মানপূর্বক আমি নিন্মস্বাক্ষরকারী মো. নূর করিম ভূট্রো, পিতা- মৃত আবদুল খালেক, সাং- ছাড়াইতকান্দি, ১নং-ওয়ার্ড, ৭নং- সোনাগাজী ইউনিয়ন, উপজেলা-সোনাগাজী, জেলা-ফেনী, এই মর্মে আবেদন করিতেছি যে, ফেনী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মহোদয় ১। ” ছাড়াইতকান্দি রসিদিয়া মাদ্রাসার উন্নয়ন কাজ” ২। “মৌলভী বাড়ি থেকে গোপাল বাড়ি পর্যন্ত কাঁচা রাস্তা উন্নয়ন” ৩। “গোলাবাড়ি থেকে পাকা রাস্তা পর্যন্ত কাঁচা রাস্তার উন্নয়ন” ৪। “রাসুলে করিম (স:) জামে মসজিদের গার্ড ওয়াল নির্মাণের জন্য মাটি ভরাট” ৩টি প্রকল্প বরাদ্দ দিয়েছেন। সোনাগাজী পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নূরনবী লিটন সাহেব প্রকল্পের সভাপতিদের সাহিত যোগসাজস করিয়া উন্নয়ন কাজ না করেই সরকারি টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করিয়াছেন। ঘটনার সময় ২০/০৯/২০১৯ইং সকাল অনুমান ১০.০০ ঘটিকার সময় রানুলে করিম (স:) জামে মসজিদের উন্নয়ন প্রকল্পে পুরাতন জং ধরা স্ক্র্যাপ টিন দিয়ে কাজ করার বিষয়ে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে কাউন্সিলর নূরনবী লিটন আমাকে অশ্লীল ভাষায় গালি-গালাজ করে এবং হত্যার হুমকি দিয়েছেন। এমতাবস্থায় উল্লিখিত তিনটি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ হয়েছে কিনা? তাহা সরেজমিনে তদন্ত করিয়া সরকারি টাকা আত্মসাৎকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহন করিতে মহোদয় সমীপে আবেদন করিলাম।
অতএব মহোদয় দয়া পরবশে উপরে লিখিত বিবরনীর আলোকে ১। ” ছাড়াইতকান্দি রসিদিয়া মাদ্রাসার উন্নয়ন কাজ” ২। “মৌলভী বাড়ি থেকে গোপাল বাড়ি পর্যন্ত কাঁচা রাস্তা উন্নয়ন” ৩। “গোলাবাড়ি থেকে পাকা রাস্তা পর্যন্ত কাঁচা রাস্তার উন্নয়ন” ৪। “রাসুলে করিম (স:) জামে মসজিদের গার্ড ওয়াল নির্মাণের জন্য মাটি ভরাট” ৩টি প্রকল্পেরর নামে সরকারি টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করার ঘটনায় সরেজমিনে তদন্ত করিয়া সরকারি টাকা আত্মসাৎকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহন করিতে যেন আপনার মর্জি হয়। তারিখ: ২০/০৯-২০১৯ইং
নিবেদক, স্বাক্ষরিত নূরকরিম ভূট্রো।

বি: দ্র: সদয় অবগতির জন্য অনুলিপি প্রেরণ করা হইল:
১। মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয়, ফেনী-৩ নির্বাচনী এলাকা।
২। মাননীয় জেলা প্রশাসক, ফেনী।
৩। মাননীয় উপজেলা চেয়ারম্যান, সোনাগাজী, ফেনী।
৪। মাননীয় অফিসার ইনচার্জ, সোনাগাজী মডেল থানা, জেলা- ফেনী
৫। মাননীয় মেয়র সোনাগাজী পৌরসভা, ফেনী।
৬। মাননীয় চেয়ারম্যান, ৭নং সোনাগাজী ইউনিয়ন পরিষদ।
প্রিয় পাঠকেরা অচিরে সেই কিভাবে সরকারি টাকা লুটেপুটে খেয়েছে আরো জানতে পারবেন। জানতে পারবেন সালিস বাণিজ্য ও থানার দালালির টাকার হিসাব ও গ্রীস প্রবাসী নাসির উদ্দিনের সম্পদ আত্মসাৎ ও তার সাজানো সংসার তছনছ করার কাহিনী।