জায়লস্করে ৬০ একর অনাবাদি জমিতে আউশ ধান আবাদের কার্যক্রম উদ্বোধন

আপডেট : April, 18, 2020, 9:49 pm

আলোকিত সময় ডেস্ক>>>

 

 

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা মোতাবেক অনাবাদি জমি আবাদের আওতায় আনতে দাগনভূঞার জায়লস্কর ইউনিয়নে আবাদযােগ্য সকল জমিকে চাষের আওতায় আনার ঘােষণা দিয়েছেন চেয়ারম্যান মামুনুর রশীদ মিলন । আজ শনিবার ১৮ এপ্রিল দুপুরে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলায় জায়লস্কর ইউনিয়নের দক্ষিণ বারাহী গােবিন্দ এলাকায় ৬০ একর জমিতে আউশ ধানের বীজতলা কাজের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান । এসময় চেয়ারম্যান জায়লস্কর ইউনিয়নকে খাদ্য ভান্ডার হিসেবে গড়ে তােলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন । মামুনুর রশীদ মিলন বলেন , জায়লস্কর ইউনিয়নে ৪ হাজার ৭৫ একর জমি রয়েছে । মাত্র ৫শ একর জমিতে চাষ হচ্ছে , বাকী জমি পড়ে আছে । সেচের সুযােগ রয়েছে এমন সবগুলাে জমিতে আবাদ চলবে । কেউ যদি চাষাবাদ করতে রাজি না হন তবে ইউনিয়নের আওতায় এনে ব্যক্তিগত উদ্যোগে চাষ করবাে ।

ফসল ইউনিয়নের অসহায় মানুষের মধ্যে। সরবরাহ করা হবে. ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা উপ-সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা রনি মজুমদার বলেছেন, সরকার সম্প্রতি আউশ ধানের আবাদে কৃষকদের আগ্রহী হওয়ার জন্য প্রণোদনা দিয়েছে। গয়ালস্কর ইউনিয়নে ৪ জন কৃষক চাষের জন্য ৫ কেজি চাল, ২৫ কেজি ডিএপি এবং ৫ কেজি এমওপি সার পেয়েছিলেন। তিনি বলেন, প্রণোদনা সত্ত্বেও অনেক কৃষক বিভিন্ন কারণে কৃষিতে যেতে রাজি হননি। এ প্রসঙ্গে চেয়ারম্যান ৩ জন কৃষকের জমি কমপ্যাক্ট আকারে প্রস্তুত সহ সকল ব্যয় বহন করেছেন। তিনি বলেছিলেন যে ১০০ দিনের মধ্যে ফসল মানুষের ঘরে ঘরে উঠবে। সরকারী অনুপ্রাণিত কৃষক শফিকুল হেসেন বলেন, কারিনা পরিস্থিতিতে দিনমজুর নেই, উত্পাদন ব্যয় বেশি। এই পরিস্থিতিতে চেয়ারম্যান আমরা সিদ্ধান্ত এবং সহযোগিতা নিয়ে কৃষিকাজে যাচ্ছি।

বীজতলা কাজের উদ্বোধনে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আদিত্য মজুমদার , উপ সহকারী কৃষি অফিসার মােশারফ হােসেন , স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মােঃ জসিম উদ্দিন,কৃষক বদরুলসহ আরো ৫০ জন কৃষক ।