মতিগঞ্জের পালগিরির ডিস আলমের অত্যাচারে অতিষ্ঠ ব্যবসায়ী সুমনের ফেসবুকে আবেগ ঘন স্ট্যাটাস

আপডেট : May, 31, 2020, 12:11 am

স্টাফ রিপোর্টার->>>
সোনাগাজী উপজেলার মতিগঞ্জ ইউনিয়নের পালগিরি গ্রামের ডিস আলমের অত্যাচারে অতিষ্ঠ একটি অসহায় পরিবার। মামলা-হামলায় জর্জরিত অসহায় ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন সুমন। নিরুপায় হয়ে বিচার চেয়ে নিজের ফেসবুকে আবেগ ঘন স্ট্যাটাস দিয়েছে। তা হুবহু তুলে ধরা হলো।

আমি আবুল কালাম (সাবেক গ্রাম পুলিশ) এর ছেলে। আমার বাবা ২০০৭ সালে মারা যায় যখন আমার বয়স ১৫- ১৬ বছর। তখন থেকে অদ্যবদি আমার নামে বিভিন্ন মিথ্যা মামলা দিয়ে একের পর এক হয়রানি করে আসছে ডিস আলম। প্রত্যেক টিতে আমাদের পক্ষে রায় পাই। এর পর সে আমার ও আমার পরিবারের সদস্য দের প্রাণ নাশের জন্যও একাধিকবার হামলা করে। নিচে হামলার কিছু চিত্র, আদালত থেকে আমাদের পক্ষের রায়ের কপি ও সাংবাদিকদের গণ ধোলাই করার তার ফেইসবুকে দেয়া হুমকির স্কিন শর্ট আপনাদের দেখানোর চেষ্টা করছি।
সাম্প্রতিক ঈদের আগের দিন (২৪ মে) বাড়িতে আমাদের পুরুষ কেউ না থাকার সুবাদে আলম, তার ভাগিনা সহ কিছু বহিরা গত দের বাড়িতে এনে আতশ বাজি ফাটিয়ে আমার পরিবারে আমার বৃদ্ধা মা সহ ভাবিকে আক্রমণ করে। উল্টো আমাকে ফাঁসানোর জন্য পরে সে পুলিশে খবর দেয়। এবং মাদকের সাথে জড়িত বলে আমার নামে অভিযোগ করে। আমি এসব হয়রানি খবর যখন গণমাধ্যম কর্মীদের অবগত করি। তারা আমার মানবেতর জীবনের কথাগুলো শুনার পর যখন তারা আমাকে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেয় তখন সে আরো ক্ষুব্ধ হয়ে গণ মাধ্যম কর্মীদের ও হুমকি প্রদান করে। যা ইতি মধ্যে তার নিজ ফেইসবুক আইডিতে অনেকে দেখে আমাকে অবগত করে। স্ট্যাটাস এর কিছু কথা আমি আপনাদের জানিয়ে রাখি, ঘটনানার সে বলে তার ভাই বিদেশ থেকে থানায় ফোন করেছে। সে দেশে থেকে জানেনা কে তার বাড়িতে বোমা বর্ষণ করেছে? অথচ তার ভাই সৌদি আরব থেকে জেনে গেছে। তার সৌদি প্রবাসী ভাই গায়েবী জানে নাকি! আমি নাকি অপসাংবাদিকদের দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করিয়েছি যদি তাই হয় অপসাংবাদিক কারা তিনি তাদের নাম প্রকাশ করুক। তিনি যে সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী নিয়ে সেখানে গিয়েছেন সেই সাংবাদিকটা কোন পত্রিকা ও কোন মানবাধিকার সংগঠনের সাথে কাজ করে তার নামও জাতি জানতে চায়। নাকি সে সহ নাটকের যবনিকা করেছে সেটাও অচিরে জাতি জানতে পারবেন।

যার খু্ঁটির বলে ডিস আলম আমি ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা হয়রানি করে যাচ্ছে তাকে সহ ডিস আলমকে অচিরে আইনের আওতায় আনা হবে।

পরিশেষে আমি সম্মানিত প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও জাতির বিবেক গণমাধ্যম কর্মীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এ আলমের হিংস্র স্বীকার থেকে আমাকে রক্ষা পেতে সাহায্য করুন। সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে এ স্বীকার থেকে রক্ষা করে আমি বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে বেঁচে থাকতে পারি সে ব্যবস্থাটুকু করে দিবেন বলে আমি আশা করছি।