আইসিই ও ইউএনডিপি যৌথ উদ্যোগে রিভাইভ’র বিভাগীয় মেন্টরশীপ প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত

আপডেট : December, 23, 2020, 11:18 pm

তাসফিয়া মাহিনুর-

আইসিই ও ইউএনডিপি যৌথ উদ্যোগে রিভাইভ’র বিভাগীয় মেন্টরশীপ প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনোভেশন, ক্রিয়েটিভিটি এন্ড এন্ট্রাপ্রেনিউরশীপ (আইসিই) সেন্টার এবং ইউএনডিপি বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে গৃহীত ‘রিভাইভ’ প্রকল্পের অংশ হিসেবে ২৩ ডিসেম্বর সকাল ৯টা ৩০ থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৬টা ৩০ পর্যন্ত চলে চট্টগ্রাম বিভাগেরে জেলাগুলোর জন্য “বিজয় দিবস-২০২০ ভার্চ্যুয়াল সিএমএসএমই বিভাগীয় মেন্টরশীপ প্রোগ্রাম”।

দিনব্যাপী এই আয়োজনে চট্টগ্রাম বিভাগের প্রতিটি জেলা থেকে সিএমএসএমই ব্যবসায়ীগণ এবং এই খাতের সাথে জড়িত গুরুত্বপূর্ণ অংশীদারগণ অংশগ্রহণ করেন।

সর্বমোট ৮ ঘন্টার এই মেন্টরশীপে সকাল ৯টা ৩০ এর সেশনের বিষয়বস্তু ছিল বাজারজাতকরন, সাপ্লাই চেইন ব্যবস্থাপনা এবং প্রযুক্তি। আইসিই সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক জনাব মোঃ রাশেদুর রহমান সেশনের শুরুতে অংশগ্রহণকারী সকল সিএমএসএমই ব্যবসায়ীগণ এবং অতিথিদের স্বাগত জানান। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে এই প্রকল্পের ১০০ ঘন্টার ভার্চ্যুয়াল মেন্টরশীপের মাধ্যমে যে আলোচনার শুরু হয়েছে সেটির ধারা অব্যাহত থাকবে এবং আগামীদিনের অর্থনীতিতে একটি ইতিবাচক পরিবর্তন নিয়ে আসবে।এই সেশনে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিভাগের বিভাগের শিক্ষক কাজী মোঃ জামশেদ এবং বিসিই এর সিইও ওয়াসফি তামিম। মোঃ জামশেদ বলেন, চট্টগ্রাম অঞ্চল বাংলাদেশের জন্য এক আশীর্বাদ। তার মতে, ব্যবসা করার জন্য প্রযুক্তি এবং নেটয়ার্কিং খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জনাব ওয়াসফি তামিম বলেন, ব্যবসা করার জন্য টাকার চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে সঠিক পরিকল্পনার উপর ।

সকাল ১১ টা ৩০ এর লিগ্যাল, গভর্ন্যান্স এবং ডকুমেন্টেশন বিষয়ক সেশনে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ মোস্তফা হোসাইন এবং টিএমএসএসের প্রশিক্ষণ ও প্রসাশনের পরিচালক ফয়জুন নাহার। জনাব মোস্তফা হোসাইন উদ্যোক্তাদের জন্য ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে রেজিষ্ট্রেশনের গুরুত্ব তুলে ধরেন। ফয়জুন নাহার তার বক্তব্যে উদ্যোক্তা হতে গেলে কি কি বিষয়ের উপর দক্ষতা এবং জ্ঞান থাকা প্রয়োজন তা বিশদভাবে ব্যাখ্যা করেন।

১ ঘন্টা বিরতির পর দুপুর ২টা ৩০ এর সেশনে আলোচ্য বিষয়বস্তু ছিল স্ট্র্যাটেজি, ডাইভার্সিটি এবং মানসিক স্বাস্থ্য। এতে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে অংশ নেয় শিল্প মন্ত্রণালয়ের এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি দীপঙ্কর রায় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম এন্ড হস্পিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শরীফুল আলম খন্দকার। দীপঙ্কর রায়ের মতে, ডাইভার্সিটি কোনো চ্যালেঞ্জ নয় বরং এটা জীবনের এক সৌন্দর্য। আমাদের প্রত্যেকের উচিত ডাইভার্সিটিকে সুযোগ হিসেবে সাদরে গ্রহণ করে সামনে এগিয়ে চলা। জনাব শরীফুল আলম খন্দকারের মতে, উদ্যোক্তারাই আসল হিরো কারন তারা দেশকে বদলে দিতে পারে। কম দক্ষতা সম্পন্ন করম্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

সর্বশেষ বিকেল ৪টা ৩০ এর অর্থায়ন, হিসাবরক্ষন এবং প্রণোদনা প্যাকেজ বিষয়ক সেশনে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং এন্ড ইনফর্মেশন সিস্টেম বিভাগের শিক্ষক ড জামিল শরীফ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোঃ আরিফুজ্জামান।

সিএমএসএমই ব্যবসায়ীগণ এই প্রোগ্রামে তাদের সমস্যাগুলো নিয়ে বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞদের সাথে সরাসরি আলোচনা করার মাধ্যমে পুরো আয়োজনকে একটি প্রাণবন্ত শিক্ষনীয় সময়ে রুপান্তর করেন।