শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়নের ধারা বাধাগ্রস্ত করতে সোনাগাজী পৌর নির্বাচনকে ঘিরে ষড়যন্ত্রকারীরা জোট বেঁধেছেঃ মেয়র খোকন

আপডেট : February, 3, 2021, 12:39 pm

স্টাফ রিপোর্টারঃ
সোনাগাজী উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক, পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন বলেছেন, আমি জনপ্রতিনিধি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছি মানুষের কল্যাণের জন্য। নিজের সর্বশক্তি দিয়ে মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করেছি। নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে সদা তৎপর ছিলাম। কারো প্রতি রাগ অনুরাগের বশিভুত হয়ে কারো ক্ষতি করি নাই। উপজেলা থেকে এলজিইডি, এডিপি, এডিপি, টিআর, কাবিখা সহ অবকাঠামো উন্নয়নের ভাগবাটোয়ারা বা কমিশন বাণিজ্যে লিপ্ত ছিলাম না। সোনাগাজী পৌর এলাকায় মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে একজন পাহারাদার হিসেবে কাজ করেছি। পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে সোনাগাজী পৌর এলাকাকে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত পৌরসভা করেছি। পৌরবাসী সহ উপজেলার সর্বস্তরের জনগণের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করেছি। হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের গণমুখী সর্বাত্মক স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ করে স্বাস্থ্য খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে কাজ করেছি।
সোনাগাজীতে নিজস্ব ক্যাডার বাহিনী লালন না করে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে গণমুখী রাজনীতির মাধ্যমে রাজনৈতিক সহবস্থান নিশ্চিত করেছি। দলীয় বা বিরোধী দলীয়দের সাথে দাঙ্গা-হাঙ্গমা না করে শান্তি সহবস্থান ও সম্প্রীতির রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করেছি। বণিক সমিতির নেতা হিসেবে নির্বিঘ্ন ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সোনাগাজী বাজারের ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বাণিজ্য নিশ্চিত করেছি। আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রাজনীতি করতে গিয়ে অন্যায়কে প্রশ্রয় না দেয়ায় দলীয় সাইনবোর্ডে থাকা কতিপয় বিপথগামীদের কাছে বিরাগভাজন হয়েছি। তারপরও মানুষের মাঝে শান্তি সম্প্রীতি ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেছি। সোনাগাজীতে অপরাধ নির্মূল তথা অপরাধীদের চিহ্নিত করতে পুরো পৌর ওলাকাকে সিসিটিভি ফুটেজের আওতায় এনেছি। ৮কোটি টাকার ঋণের বোঝা নিয়ে আগোছালো পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণির পৌরসভায় উন্নীত করেছি।
সোনাগাজী পৌরসভার সৌন্দর্য্য বর্ধনে সিটি গেইট সহ অবকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়নের চেষ্টা করেছি। সৃপেয় পানি নিশ্চিত করতে জমিক্রয় সহ প্রকল্পবাস্তবায়নে কাজ করেছি।
পৌর অডিটোরিয়াম নির্মাণ সহ পৌর এলাকার গুরুতপূর্ণ সড়ক ও ঘনবসতিপূর্ণ বাড়ির সড়কগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে উন্নয়ন করেছি। পয়নিষ্কাশনের জন্য প্রশস্ত ড্রেন নির্মাণ সহ বহু প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছি। পৌরসভাকে দুর্নীতিমুক্ত করতে টেবিলে টেবিলে ঘুষ নীতি বন্ধ করেছি। নাগরিকদের সেবা নিশ্চিত করতে কুইক সেবা সহ সকল কর্মকর্তাকর্মচারীদের সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা অফিসের কর্মঘন্টা তথা উপস্থিতি নিশ্চিত করেছি। আর জনগণের এই সেবা নিশ্চিত করতে গিয়ে অফিসের কর্মকর্তাকর্মচারীদেরও বিরাগভাজন হয়েছিলাম। পৌরবাসী সহ উপজেলার এমন কোন নাগরিক বলতে পারবেননা দলীয় প্রভাব তথা মেয়রের ক্ষমতার অপব্যবহার করে কারো ক্ষতি করেছি বা থানায় বা ভূমি অফিসে দালালী করেছি। দায়ত্বপালন সময়ে বরং পুলিশি বা সরকারি বিভিন্ন দফতরে মাঝে মধ্যে নাগরিক হয়রানির প্রতিবাদ করতে গিয়ে পুলিশ ও সরকারি কর্মকর্তাদের বিরাগভাজন হয়েছি।
অফিসের সার্বিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে পৌর অফিসের অবকাঠামো উন্নয়ন সহ সার্বিক পরিবেশ ফিরিয়ে এনেছি।
সোনাগাজী পৌর এলাকায় সড়ক বাতি স্থাপনের মাধ্যমে পৌরবাসীকে অন্ধকার থেকে আলোয় ফিরিয়ে এনেছি।
অবৈধ বালি উত্তোলন, কৃষি জমির মাটি ব্যবসা, জমি জবরদখল সহ কোন অনৈতিক কাজে ঝড়িয়ে নিজে লাভবান হওয়ার চিন্তাও করিনি। অনৈতিক আয়ে জড়িত হয়নি।
ছাত্রজীবন থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে রাজনীতি করতে গিয়ে প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের সন্ত্রাসী তথা বিএনপি জামায়াতের-সন্ত্রাসীদের অত্যাচার নির্যাতন হামলা মামলার শিকার হয়েছি। কখনো প্রতিশোধ পরায়ণ হয়নি। সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন তথা সোনাগাজীবাসীর কল্যাণের সার্থে সোচ্চার থেকেছি।
আমার আয়ের উৎস মাছ চাষ, দোকান ঘরের ভাড়া তথা আমার আইন পেশার আয়ের একটি অংশ নেতাকর্মীদের পেছনে তথা গরিব দুখী মানুষ তথা সাধারণ মানুষের কল্যাণে ব্যয় করে যাচ্ছি।
কিছু অপপ্রচারকারী আমার সাফল্যে ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে।
পৌর নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই ষড়যন্ত্রকারীরা তৎপর হয়ে উঠে। আমার বিরুদ্ধে পরিকল্পিত অপপ্রচারে লিপ্ত হয়। এসব অপপ্রচার বাগুজবে কেউ কান দিবেননা। আমার রাজনীতি সোনাগাজীবাসীর কল্যাণের জন্য। আমার যদি কোন সাফল্য থাকে সেটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ফেনী-২ আসনের সাংসদ, জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারীর সাফল্য। আর যদি ব্যর্থতাকে থাকে সেটি একান্তই আমার ব্যক্তিগত ব্যর্থতা। সোনাগাজী পৌরসভার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে আগামী নির্বাচনে তিনি আবারো জনগণের সমর্থন ও দোয়া চেয়েছেন।
তিনি আরো বলেন সুষ্ঠু ধারার রাজনৈতিক প্রতিযোগিতায় হেরে যাওয়া কতিপয় বিপদগামী ও প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের কুচক্রিদের অপপ্রচারে কেউ কান দিবেননা। এই জনপদের মানুষদের আস্থা ও ভালোবাসা নিয়ে আমি বেঁচে থাকতে চাই।
দলীয় মনোনয়ন পেলে তিনি শেখ হাসিনা তথা আ.লীগের প্রার্থী হিসেবে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।
তিনি আরো দাবি করেন, শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়নের ধারা বাধাগ্রস্ত করতে সোনাগাজী পৌর নির্বাচনকে ঘিরে ষড়যন্ত্রকারীরা জোট বেঁধেছে। তিনি গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেছেন।