ফেনীতে ব্যবসায়ীকে হত্যার চেষ্টা, দুটি ককটেল উদ্ধার, আধুনিক জুয়েলার্সের মালিক সাহাব উদ্দিন সহ গ্রেফতার ১৪

আপডেট : March, 9, 2021, 8:59 am

স্টাফ রিপোর্টার->>>> ফেনীতে আবু তৈয়ব (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে প্রতিপক্ষ ও ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা হত্যার চেষ্টা চালিয়েছেন। এঘটনায় দুটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার ও আধুনিক জুয়েলার্সের মালিক সাহাব উদ্দিন সহ ১৪ জন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে ফেনী থানার পুলিশ। ৫মার্চ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ফেনী সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের মজলিশপুর গ্রামের সওদাগর বাড়ির চলাচলের রাস্তার উপর এ ঘটনা ঘটে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার, এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, সওদাগর বাড়ির মৃত মন্তু মিয়ার ছেলে আবু তৈয়বের সাথে একই বাড়ির রুস্তম আলীর ছেলে সাহাব উদ্দিন গংদের সাথে দীর্ঘ দিন যাবৎ জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে একাধিকবার সামাজিকভাবে সালিশি বৈঠকও হয়েছিল। সাহাব উদ্দিন গং গায়ের জোরে সামাজিক বিচার আচারের ধার ধারে না। ৫মার্চ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সাহাব উদ্দিন ও তার ভাড়াটে ১৫-২০জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী নিয়ে আবু তৈয়বের মালিকীয় দখলীয় জমিতে খুঁটি বসানোর চেষ্টা চালায়। এসময় আবু তৈয়ব বাধা দিলে বেআইনী জনতায় দলবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আবু তৈয়বকে হত্যার চেষ্টা চালায়। এসময় সন্ত্রাসীরা কয়েকটি ককটেল ফাটিয়ে এণাকায় চরম আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। দুটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করে পুলিশ।
এ ঘটনায় আবু তৈয়ব বাদি হয়ে রুস্তম আলীর ছেলে সাহাব উদ্দিন, তার ছেলে সাইফুল ইসলাম, ভাই ছালাহ উদ্দিন, গোহাড়ুয়া গ্রামের আল মামুনের ছেলে আরিফ হাসান আশিক, আবদুল্লাহ জাহিদ মজুমদারের ছেলে মেহেদী হাসান, ফেনী শহরের পশ্চিম উকিল পাড়ার ইলিয়াছ ভূঞা বাড়ির জয়নাল আবেদীনের ছেলে ইফতেখার উদ্দিন নাজমুল। দাগনভূঞা উপজেলার উত্তর জায়লস্কর গ্রামের মনু ব্যাপারী বাড়ির আবুল হোসেনের ছেলে মেহেদি হাসান শাকিব, মোটবীর জাহাঙ্গীর সওদাগর বাড়ির হাফিজুর রহমানের ছেলে শরীফুল ইসলাম, বালি গাঁওর নূরুল আলমের ছেলে দিদারুল আলম, ধলিয়ার দৌলতপুর গ্রামের আবুল বশরের ছেলে মো. নাঈম, পশ্চিম উকিল পাড়ার ইলিয়াছ ভূঁঞা বাড়ির আবুল মিয়ার ছেলে আলী আজগর, ভালুকিয়ার আবুল হোসেন মেম্বার বাড়ির মমিনুল হকের ছেলে জাহিদুল ইসলাম,খুলনার বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানার বাবু খালী গ্রামের বড়বাড়ির মোশাররফ হোসেন হাওলাদারের ছেলে মো. আরিফ হোসেন, ভালুকিয়ার শেখ আহম্মদ দরবেশ বাড়ির নাছির উদ্দিনের ছেলে রায়হান উদ্দিন ও কালিদহের হাজী রহমত আলী বাড়ির মো. মোস্তফার ছেলে আশিকুর রহমানকে আসামি করে ফেনী মডেল মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ছালাহ উদ্দিন ছাড়া বাকী ১৪জন আসামিকে গ্রেফতার করেছে। ব্যবসায়ী আবু তৈয়ব আরো অভিযোগ করেন, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে সাহাব উদ্দিন বিভিন্ন এলাকার তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে তার উপর হামলা করে তাদের মালিকীয় জমি জবর দখলের চেষ্টা চালিয়েছে। বর্তমানে তিনি চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন। এর আগেও সাহাব উদ্দিন একই কায়দায় আবু তৈয়ব ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা করেছিল।