সোনাগাজীতে উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রধান অতিথি করায় মেম্বারদের শপথ অনুষ্ঠানে হৈ চৈ করে বয়কট

আপডেট : February, 11, 2022, 12:47 am

স্টাফ রিপোর্টার->>>
সোনাগাজীতে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটনকে প্রধান অতিথি করায় মেম্বারদের শপথ অনুষ্ঠানে হৈ চৈ করে বর্জন করেছে উপজেলা আ.লীগের নেতারা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএম জহিরুল হায়াত মেম্বারদের শপথ বাক্য পাঠ করানোর পরপরই উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক, পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকনের নেতৃত্বে আ.লীগের নেতাকর্মী, শপথ গ্রহনকারী মেম্বারেরা এবং উপস্থিত চেয়ারম্যানেরা হৈ চৈ করে অনুষ্ঠান বর্জন করে চলে যান। ফলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দিতে পারেননি। শপথ অনুষ্ঠানের শুরুতেই উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন প্রশ্ন তুলেন, ব্যানারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যানের নাম লেখা হয়েছে। বিশেষ অতিথি কে বা কারা? এমন প্রশ্ন তুলে তিনি মঞ্চে না বসে দর্শক সারীতে গিয়ে বসেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাকে অনুরোধ করলেও তিনি দর্শক সারিতে বসে শপথ বাক্য পাঠ করানোর জন্য ইউএনওকে অনুরোধ করেন। ইউএনও ৯টি ইউনিয়নের ২৭ জন সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী মেম্বার ও ৮১ জন পুরুষ মেম্বারকে শপথ বাক্য পাঠ করান। শপথের পরপরই উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে উপস্থিত চেয়ারম্যান ও মেম্বারেরা শপথ অনুষ্ঠান বর্জন করে একযোগে হৈ চৈ করে বের হয়ে যান। ফলে উপজেলা চেয়ারম্যান বক্তব্য দিতে পারেননি। এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএম জহিরুল হায়াত বলেন, শপথ অনুষ্ঠানে সামান্য ভুলবুঝাবুঝি হয়েছে।
উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক, পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আ.লীগ নেতৃবৃন্দ, নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান-মেম্বারেরা যৌক্তিক দাবী তুলে শপথের পরবর্তী অনুষ্ঠান বর্জন করেছে।
উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আজিজুল হক হিরণ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শপথ অনুষ্ঠানে যিনি শপথ বাক্য পাঠ করাবেন নিয়ম ব্যানারে উনার নাম থাকবে। কিন্তু সোনাগাজীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যানের নাম থাকায় বিষয়টি চেয়ারম্যান মেম্বারেরা মেনে নিতে পারেননি।
উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক, চরদরবেশ ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ভুট্টুো ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শপথ অনুষ্ঠানে আ.লীগ নেতা, মেয়র ও চেয়ারম্যানদের যথাযথভাবে বসার ব্যবস্থা না করে ব্যানারে শুধু উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রধান অতিথি ঘোষণা করায় সকলে শপথ শেষে পরবর্তী অনুষ্ঠান বর্জন করেছে। এ ব্যপারে জানার জন্য উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটনের ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি।
উল্লেখ্য, গত ২৬ ডিসেম্বর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান লিপটনের ইউনিয়ন নবাবপুরে বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র (প্রার্থী) ছাড়া আটটি ইউনিয়নে আ.লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়। এনিয়ে উপজেলা আ.লীগের সাথে তার মনস্তাত্ত্বিক দূরত্ব বাড়তে থাকে। ৯ ফেব্রুয়ারি ফেনীর জেলা প্রশাসক আবু সেলিম মাহমুদ উল হাসান নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানদের শপথ করান।